মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangladesh Total News

লালমনিরহাটে মাটি খুঁড়তেই বেড়িয়ে এলো দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের বিমানের ধ্বংসাবশেষ!

প্রকাশের সময় : ১৮ অক্টোবর, ২০২০ ১:২৪ : পূর্বাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট : লালমনিরহাটে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে ব্যবহৃত একটি যুদ্ধ বিমানের মূল ইঞ্জিনসহ বিমানের বিভিন্ন ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার করেছে স্থানীয় জনতা।শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) দুপুরে লালমনিরহাট বিমানবন্দর রানওয়ে থেকে প্রায় ৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে একটি কৃষিজমির মাটির নিচ থেকে যুদ্ধবিমানের ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কৃত হয়। পরে শনিবার (১৭ অক্টোবর) লালমনিরহাট জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে স্থানীয় পুলিশ ও বিমান বাহিনীর সদস্যরা উদ্ধার কার্যক্রম ও ওই এলাকা নিয়ন্ত্রণে নেয়।শনিবার সকাল ৮টা থেকে উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উদ্ধার কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। যুদ্ধবিমানের ধ্বংসাবশেষ এবং উদ্ধার কার্যক্রম দেখতে লালমনিরহাট সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে শত শত উৎসুক জনতার ভিড় সামলাতে স্থানীয় পুলিশ ও বিমান বাহিনীর সদস্যদের বেগ পেতে হচ্ছে।

উদ্ধারকাজে অংশ নেওয়া বিমান বাহিনীর কর্মকর্তাদের সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত একটি যুদ্ধ বিমানের মূল ইঞ্জিন (প্রপেলার) ১টি, ২টি ল্যান্ডিং গিয়ার, ওয়েল বার্নিং এক্সজস্ট (সাইল্যান্সার), এমিউনেশন্স, ৫টি গান ও বিমানের টুকরো টুকরো কিছু যন্ত্রাংশ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে উল্লিখিত যন্ত্রাংশের নাম নিশ্চিত হতে এবং কোন দেশের তৈরি বা কোন দেশের যুদ্ধবিমান ছিল এই মুহুর্তে কিছু বলতে পারেনি উপস্থিত বিমান বাহিনীর কর্মকর্তারা।লালমনিরহাট বিমানবন্দর রানওয়ে থেকে প্রায় ৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে একটি চাষের জমির মাটির নিচ থেকে একটি যুদ্ধবিমানের মুল ইঞ্চিন (প্রপেলার) সহ বেশ কিছু জিনিসপত্র উদ্ধার করা হয়। তবে উদ্ধার কার্যক্রম এখনও শেষ ঘোষণা করা হয়নি। দুপুর ১২টায় নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) ঘটনাস্থল থেকে ফিরে গেলেও সেখানে বিমান বাহিনীর ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট মাহমুদুল হাসান মাসুদ সহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ উপস্থিত রয়েছে।জমির মালিক রেজাউল করিম জানান, তার আবাদি উঁচু জমির উপরের মাটি কেটে নিচু করার জন্য কিছু মাটি কাটা শ্রমিক কাজ করছিল। শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) দুপুরের পর সোহেল মিয়া নামে একজন শ্রমিক ৮-১০ কেজি ওজনের কিছু গুলি সদৃশ বস্তু প্রথমে দেখতে পান। এরপর আমাকে বিষয়টি অবহিত করলে থানায় খবর দেই। পরে পুলিশ এসে সেগুলো নিয়ে যায়। এরপর শনিবার সকালে বিমান বাহিনীর লোকজন, পুলিশ ও ডিসি অফিসের কর্মকর্তারা নিজেরা উপস্থিত থেকে স্থানীয় শ্রমিকদের মাধ্যমে মাটি খুঁড়ে পাঁচফুট মাটির নিচ থেকে যুদ্ধ বিমানের বেশ কিছু জিনিস উদ্ধার করেছে। এখনও কাজ চলছে।

উল্লেখ্য, লালমনিরহাট সদর উপজেলার মহেন্দ্রনগর ও হারাটি ইউনিয়নে বিরাট এলাকাজুড়ে ১৯৩৯-৪০ সালে লালমনিরহাট বিমানবন্দর স্থাপিত হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে লালমনিরহাট বিমানবন্দরটি ব্যবহৃত হয়। পরবর্তীতে সেটি পরিত্যক্ত থাকলেও দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধুর সরকার বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর প্রধান দফতর স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়। এটি সফল না হওয়ায় বর্তমানে এখানে “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এভিয়েশন অ্যান্ড অ্যারো স্পেস বিশ্ববিদ্যালয়” স্থাপন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এছাড়াও চলতি বছরে লালমনিরহাট বিমানবন্দরের পাশেই “আর্মি এভিয়েশন স্কুল” প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।


ট্যাগ :

আরো সংবাদ