রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০ ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangladesh Total News

নগরীর হোটেলগুলোকে আধুনিক মানসম্পন্ন করার আহ্বান: প্রশাসক সুজন

প্রকাশের সময় : ১৪ অক্টোবর, ২০২০ ১১:৩৯ : পূর্বাহ্ণ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, চট্টগ্রাম নগরীকে পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সরকারের পাশাপাশি নগরীর আবাসিক হোটেলগুলোকে মান সম্পন্ন আধুনিক আবাসিক হোটেল গড়ে তোলার জন্য হোটেল মালিকদের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, দেশি-বিদেশী পর্যটকদের আকৃষ্ট করার জন্য আবাসিক হোটেল গুলোর সামনে বাহারী ফুলের বাগান ও বৃক্ষের চারা রোপন করে হোটেলের সৌন্দর্যবৃদ্ধি করে পরিবেশ বান্ধব হোটেল গড়ে তোলার পরামর্শ দেন। প্রশাসক চট্টগ্রাম আবাসিক হোটেল মালিক সমিতির দাবী-দাওয়া বিবেচনায় নিয়ে জানান, ট্রেড লাইসেন্স এর সারচার্জ মওকুফের সময় আপনাদের সুবিধার্থে আরো বৃদ্ধি করা হবে। তিনি ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন করে তা হোটেলের অভ্যন্তরে দৃশ্যমান ঝুলিয়ে রাখার আহ্বান জানান। এছাড়া ডিলিং লাইসেন্স ৩ বৎসরের মেয়াদের স্থলে ১ বছর পর পর নবায়নের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলা প্রশাসকের সাথে আলাপ করে ব্যবস্থা নেবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন। প্রশাসক আরো জানান, পর্যটন মন্ত্রণালয়কে একটি ডিও লেটার পাঠানোর জন্য স্থির করা হয়েছে। এই ডিও লেটার পাঠানোর আগে আপনারা যারা আবাসিক হোটেলের ব্যবসা করেন আপনাদের পক্ষ থেকে কি কি সুবিধা চান তা একটি প্রতিবেদন আকারে আমার কাছে আপনরা প্রদান করুন। আমি আমার ডিও লেটারে আপনাদের পরামর্শগুলো সন্নিবেশিত করব। আজ সকালে আন্দরকিল্লাস্থ চসিক পুরাতন নগর ভবনে অনুষ্ঠিত গণসাক্ষাতকার গ্রহণ কার্যক্রমে এসব কথা বলেন প্রশাসক।
এছাড়াও দুবাই থেকে আগত বাংলা এনার্জি কো. লি. এর কান্ট্রি প্রধান সাখাওয়াত খানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল প্রশাসকের সাথে গ্রিন এনার্জি গার্ভেজ বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট স্থাপনের জন্য সাক্ষাত করতে এলে প্রশাসক বলেন, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় চট্টগ্রাম বন্দরের গুরুত্ব অপরিসীম। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রামের উন্নয়নে যে প্রকল্পগুলো গ্রহণ করেছেন তা বাস্তবায়িত হলে চট্টগ্রাম হবে দ্বিতীয় সিঙ্গাপুর। তিনি চট্টগ্রাম থেকে কুমবিং পর্যন্ত রেল লাইন স্থাপনের কথা গণসাক্ষাতকারে উল্লেখ করেন। আজকের এই গণসাক্ষাতকারে ৭০ জনের অধিক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান প্রশাসকের সাথে সাক্ষাত করেন। সাক্ষাতকালে যারা বিভিন্ন অভাব-অভিযোগ ও সমস্যার কথাগুলো জানিয়েছেন সেগুলো তিনি আমলে নিয়েছেন বলে জানান। তিনি আরো বলেন, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো জনগণের ট্যাক্সের টাকায় যাবতীয় কর্মকান্ড পরিচালিত হয়। তিনি নগরবাসীকে চট্টগ্রামের উন্নয়নের স্বার্থে বকেয়া হোল্ডিং ট্যাক্স পরিশোধ করার জন্য অনুরোধ জানান। তিনি নগরবাসীর অভাব অভিযোগুলো যাচাই-বাছাই এবং এর সত্যতা খতিয়ে দেখে অবশ্যই যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার কথা পুনঃউল্লেখ করেন। এসময় চসিক প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম সহ সংশ্লিস্টরা উপস্থিত ছিলেন।


ট্যাগ :

আরো সংবাদ