শনিবার, ৪ জুলাই ২০২০ ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangladesh Total News

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের দায়িত্ব নিচ্ছে এপিবিএন

প্রকাশের সময় : ২৯ জুন, ২০২০ ৯:২০ : অপরাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট :কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নিরাপত্তার দায়িত্ব নিচ্ছে দুটি আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন)।আগামী ১ জুলাই থেকে এপিবিএন এর ১৪ ও ১৬ ইউনিট এই দায়িত্ব গ্রহণের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। তবে অপরাধিদের আটকের পর মামলাসহ আইনী প্রক্রিয়া আগের মতো জেলা পুলিশের অধীনে থাকবে।সোমবার (২৯ জুন) রাতে কক্সবাজারের ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক (পুলিশ সুপার) আতিকুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশ থেকে বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের আসা শুরু হয় ১৯৭৮ সালে। এরপর থেকে বিভিন্ন সময়ে রোহিঙ্গারা আসা যাওয়ার মধ্যে থাকলেও ২০১৭ সালের ২৫ অগাস্ট থেকে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পালিয়ে আসা শুরু করে। এ পর্যন্ত পালিয়ে আসা নতুন পুরাতন ১১ লাখ রোহিঙ্গার বসতি উখিয়া-টেকনাফ। ৩৪টি ক্যাম্পে বিভক্ত করে এদের রাখা হয়েছে।এসব রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ও আশেপাশের এলাকায় সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্বে পুলিশ, সেনা বাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব সদস্যরা নিয়োজিত আছেন। এতদিন কক্সবাজার জেলা পুলিশের অধীনে ক্যাম্পের অভ্যন্তরে নিরাপত্তার কাজ পরিচালনা হয়েছে। কিন্তু এখন কক্সবাজার জেলা পুলিশের থেকে আলাদাভাবে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন সদস্যরা এ দায়িত্ব পালন করবে।রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নিরাপত্তার জন্য ২০১৮ সালে এপিবিএন ১৪ নামে নতুন ইউনিট ও গত বছর ডিসেম্বর ১৬ ইউনিট চালু করা হয়। তবে সম্প্রতি পুলিশ সদর দপ্তর থেকে দুই ইউনিটে আলাদা করে সদস্যদের পদায়ন করা হয়েছে। দুজন পুলিশ সুপার পদমর্যাদার কর্মকর্তা ইউনিট দুটির অধিনায়কের দায়িত্বে আছেন।কক্সবাজারস্থ ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক (পুলিশ সুপার) আতিকুর রহমান বলেন, ‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পের অভ্যন্তরে যত ধরনের আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত কাজ রয়েছে তা সব করবে এপিবিএন। যেমন ক্যাম্পের ভেতরে মারামারি, গৃহ বিবাদ, বিভিন্ন গ্রুপের দ্বন্দ্ব কারণে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড সংঘটিত হয়। এখন এসব কিছু দেখাশুনা করবে এপিবিএন। আর মামলা সংক্রান্ত অন্যান্য কাজগুলো করবে জেলা পুলিশ।’কক্সবাজারের ১৪ ও ১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের দেওয়া তথ্য মতে, কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে ৩৪টি আশ্রয় শিবির রয়েছে। যেখানে টেকনাফে ও উখিয়া ১৫টি ক্যাম্পের দায়িত্ব পালন করবে ১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন। আর উখিয়া ১৯টি ক্যাম্পের দায়িত্ব পালন করবে ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন। দুটি ব্যাটালিয়নে মোট ১১৭৬ জন জনবল রয়েছে। গড়ে প্রতি ক্যাম্পে ২৫ থেকে ৩০ জন আর্মড পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করবে। আর তাদের থাকবেন একজন পরিদর্শক। এপিবিএনের দুটি ইউনিটে দুজন পুলিশ সুপারের পাশাপাশি দুজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, তিনজন করে সহকারী পুলিশ সুপার পদায়ন করা হয়েছে।


ট্যাগ :

আরো সংবাদ