সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Bangladesh Total News

আগামীবার নির্বাচিত হলে, ‘বিশ্ব দেখবে জামালখান’ : শৈবাল দাশ সুমন

প্রকাশের সময় : ২৪ অক্টোবর, ২০১৯ ৯:১৮ : অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের গুরুত্বপূর্ণ একটি ওয়ার্ড হলো ২১নং জামালখান ওয়ার্ড। চট্টগ্রামের নামকরা বেশীরভাগ স্কুল, প্রেস ক্লাব ও বিভিন্ন মিডিয়া অফিস এবং স্বনামধন্য ডাক্তারদের চেম্বার ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের জন্য জামালখান এলাকা অত্যন্ত সুপরিচিত। গুরুত্বপূর্ণ এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হিসাবে জনাব শৈবাল দাশ সুমন বিগত ৪ বছরের অধিক সময় ধরে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এই সময়ে তিনি জামালখান ওয়ার্ডকে নান্দনিকভাবে সাজিয়েছেন। নৈসর্গিক সৌন্দর্যের সাথে সাথে উদ্ভাবনী মননশীল কারুকার্যের সাথে তিনি জামালখান ওয়ার্ডকে সাজিয়েছেন। বিশেষত শতাব্দী প্রাচীন ডাঃ খাস্তগীর স্কুলের সামনে ডাঃ আবুল হাশেম চত্বরকে ঘিরে পানির ফোয়ারা, অ্যাকুরিয়াম, ফুটপাথ গার্ডেন ও বসার স্থান তৈরি করে স্কুলের অভিভাবক ও সাধারণ জনগণের বসার এক সুন্দর ব্যবস্থা করেছেন। এটাই চট্টগ্রামের সবচেয়ে সুন্দর সড়ক। ওয়ার্ড কাউন্সিলর শৈবাল দাশের সৃষ্টিশীল চিন্তা ও মেয়র মহোদয়ের সহযোগিতা এবং সাথে সাথে কিছু কর্পোরেট হাউজের সহায়তায় জামালখান ওয়ার্ডকে চট্টগ্রামের সবচেয়ে সুন্দর ওয়ার্ডে পরিণত করছেন। গতকাল ২৩শে অক্টোবর বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি’র বিশেষ প্রতিনিধি ও ফটো সাংবাদিক মাহিব আহমেদ তার এসব উন্নয়ন কার্যক্রম ও সার্বিক বিষয় নিয়ে এক বিশেষ সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন। নিম্নে তা বিবৃত করা হল-
১. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : কেমন আছেন ? জনতার কাতার থেকে জনপ্রতিনিধি হয়েছেন, অনুভূতি বলুন ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : আপনাদের সকলের আশীর্বাদে ভাল আছি। বেশ ভালো বলেছেন, জনতার কাতার থেকে জনপ্রতিনিধি। আমি ব্যক্তিগতভাবে বিশ্বাস করি দেশের নাগরিকদের সামষ্টিক অবস্থা হচ্ছে জনতা। আমি ছোটবেলা থেকেই জামালখানে বেড়ে উঠেছি। এলাকার আপামর জনসাধরণের সাথে আমার নির্বাচিত হওয়ার আগ থেকে একটি প্রাণের সম্পর্ক রয়েছে। যখনই সময় ও সুযোগ পেয়েছি দল-মত, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে এলাকাবাসীকে সহায়তা দিয়েছি। পক্ষান্তরে, আমি যতটুকু এলাকাবাসীর প্রতি ভালোবাসা দেখিয়েছি তার চেয়ে অনেক বেশি সহানুভূতি দেখিয়েছে আমার জামালখান ওয়ার্ডের জনসাধারণ। জনতার অনুরোধেই জনতার কাতার থেকে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী হয়েছিলাম। জনতাই আমাকে তাদের মূল্যবান ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করেছে। জনতার অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে কর্পোরেশনের নীতিমালা অনুযায়ী করে যাওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। স্বচ্ছতার সাথে দায়িত্ব পালন করতে পারলেই আনন্দবোধ করি।
২. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : নির্বাচিত হওয়ার পর কি কি উন্নয়ন করতে পেরেছেন ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : ২৮শে এপ্রিল ২০১৫ সালে সিটি কর্পোরেশনের ২১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে আমার আপাদমস্তক চিন্তায় সংযোজিত হয় অত্র এলাকার জনসাধারণের উন্নয়নে সহায়তা করা। কর্পোরেশনের উন্নয়মূলক কর্মকান্ডের বরাদ্দকে সমন্বিত করে কর্পোরেশনের নীতিমালার আলোকে জামালখান ওয়ার্ডকে নান্দনিক করার কাজ শুরু করেছি প্রাধান্যতার ভিত্তিতে। আপনারা হয়তো লক্ষ্য করেছেন, গ্রীন এন্ড ক্লীন সিটির যে প্রতিপাদ্য ছিল ক্রমান্বয়ে তা বাস্তবায়ন করেই চলেছি। ওয়ার্ডের শোভাবর্ধনে ফুটপাতগুলোতেও টাইলস সংযোজিত করেছি। প্রতিটি ব্লকে নিরাপত্তার স্বার্থে স্থানীয় মুরব্বীদের সাথে আলাপ আলোচনা করে বেসরকারীভাবে রাত্রিকালীন নিরাপত্তাকর্মী নিয়োগ দিয়েছি। আমি নিজেই পরিচ্ছন্ন কর্মীদের সাথে থেকে আমার নির্বাচিত এলাকার পরিচ্ছন্নতার কার্যক্রম তদারকি করছি। তাছাড়া আপনাদের মাধ্যমে আরো জানাতে চাই যে, জামালখানের ডাঃ খাস্তগীর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের দেয়ালে বাঙালীর ঐতিহ্য ও স্বাধীনতার গৌরবের ইতিহাস সংবলিত পোড়ামাটির ম্যুরাল ও সেন্ট ম্যারী’স স্কুলের দেয়ালে উপমহাদেশের বরেন্য ব্যক্তিবর্গের টাইলসের ম্যুরাল শোভা পাচ্ছে। আমার নির্বাচনী ইশতেহারে বলেছিলাম “বাংলাদেশ দেখবে জামালখান।” যদি আগামীতে অত্র এলাকার জনগণ আবার উন্নয়নের দায়িত্ব আমাকে প্রদান করে তাহলে উন্নয়নের পরবর্তী ধাপ হবে “বিশ্ব দেখবে জামালখান।”
৩. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনার ওয়ার্ডের আসকারদীঘি দীর্ঘদিন যাবৎ অবহেলিত ও দূষণযুক্ত হয়ে আছে, দিঘী ৩টি পাড় অপরিকল্পিতভাবে জনবসতি গড়ে উঠেছে। দিঘীর সংস্কার ও পরিকল্পিত জনবসতি স্থাপনের উদ্যেগ নেবেন কি ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : বিগত চট্টগ্রামের পৌরসভা থেকে পর্যায়ক্রমে সিটি কর্পোরেশন পর্যন্ত সকল মেয়র ও অত্র এলাকার ওয়ার্ড কাউন্সিলররা আসকারদিঘীকে নিয়ে অনেক কিছু না কিছু ইতিবাচক চিন্তা করেছেন, কেন যে ঐ ইতিবাচক চিন্তাগুলোর বাস্তবায়ন হয়নি তা আমার বুঝে আসেনা। আপনার উল্লেখিত বিষয়টি নিয়ে বিগত তিন বৎসর আগে সম্মানিত মেয়র মহোদয় জনাব আ.জ.ম নাছির উদ্দীনের সাথে আমি কথা বলেছিলাম কিভাবে এই দিঘীর চারপাশে অপরিকল্পিত জনবসতি ও দখলমুক্ত করে নান্দনিক করা যায়। পরে জানতে পেরেছি চট্টলার এক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী দিঘীটি কিনে নিয়েছে। তাই তার প্রতি সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানিয়েছি দিঘীটির সংস্কার করে নান্দনিক পরিবেশ সৃষ্টি করলে এলাকাবাসী উপকৃত হবে ও প্রাকৃতিক পরিবেশ নির্মল থাকবে।
৪. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : সম্প্রতি গণমাধ্যম হতে জানা যাচ্ছে, চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় কিশোর গ্যাং এর প্রাদুর্ভাব রয়েছে। কিশোর গ্যাং এর নেতিবাচক কর্মকান্ড নির্মূলে আপনার কি কোন পরামর্শ আছে ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : আপনার মতো আমিও গণমাধ্যম হতে জানতে পেরেছি, চট্টলার বিভিন্ন এলাকায় অপরাধের সাথে যুক্ত হচ্ছে কিশোররা । উঠতি বয়সের এই কিশোরদের অপরাধ থেকে দূরে রাখার জন্য সর্বপ্রথম মনে করি, কাউন্সিলিংয়ের প্রয়োজন রয়েছে। তাছাড়া আমরা নির্বাচিত প্রতিনিধিরাও এই অপরাধপ্রবণ কিশোরদের সাথে মুক্ত আলোচনায় তাদের সম্ভাবনার বিষয়গুলো তাদের মধ্যে জাগাতে পারি। পাড়া মহল্লার সম্মানিত মুরব্বী, বিভিন্ন সেবামূলক সংগঠনের কর্মকর্তাদের সমন্বিত করে সমাজের বিভিন্ন ইতিবাচক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করতে পারলে হয়তো কিশোর গ্যাং এর প্রাদুর্ভাব কমতে পারে। পাশাপাশি আইনপ্রোয়গকারী সংস্থার প্রতি অনুরোধ জানাবো, এই উঠতি কিশোর গ্যাংগুলো কারা নিয়ন্ত্রন করছে এই বিষয়ে খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা যাতে গ্রহণ করা হয়।
৫. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনার ওয়ার্ডে কিছু কিছু স্থানে যানজটের কারণে জনভোগান্তি হয়, যানজট নিরসনে ও ভোগান্তি কমিয়ে আনতে কোন পদক্ষেপ নিয়েছেন কি ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : আমি ব্যক্তিগতভাবে ও একজন কাউন্সিলর হিসেবে আমার ওয়ার্ডে যানজট দীর্ঘদিন যাবৎ দেখে আসছি। জনভোগান্তির কথা অস্বীকার করবোনা। তবে কিছু কথা বলার আছে। একইসাথে জনসাধারণের কাছ থেকে সহযোগিতা কামনা করছি। একটু ব্যাখ্যা করে বলি, আমার ওয়ার্ডের সুনির্দ্দিষ্ট জামালখান সড়কে ১টি বিশ্ববিদ্যালয়, ১টি কলেজ, ৪টি হাইস্কুল, ৪টি কিন্ডারগার্ডেন ও ১টি ফাজিল মাদ্রাসা রয়েছে। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের যাতায়াতের সময়সীমা একেকরকম। ফলে অনাকাংখিত যানজট লেগেই থাকে। আমি ব্যক্তিগত উদ্যেগ নিয়ে বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে একইসময়ে ছাত্র-ছাত্রীদের যাওয়া-আসার অনুরোধ জানিয়েছিলাম। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আমার অনুরোধকে সম্মান জানিয়ে আগামী শিক্ষা বৎসরে তা বাস্তবায়নের আশ্বাস দিয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এই আশ্বাস যদি প্রতিফলন ঘটে আমার বিশ্বাস যানজট ও জনভোগান্তি কমে আসবে।
৬. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : নারী শিক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন ও দেশীয় সংস্কৃতি লালনের জন্য কি কি পদক্ষেপ নিয়েছেন ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : দেশের একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে বরাবরে আমি নারী শিক্ষার পক্ষে আছি। একটি পরিবার থেকে যদি একটি কন্যাশিশু শিক্ষার আলোতে আলোকায়িত হয় ধরে নিতে হবে সেই সমাজ আলোকিত সমাজ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারী শিক্ষার প্রতি অত্যান্ত মনযোগী ও বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহবানকে আদেশ মনে করে বাস্তবায়নের জন্য মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্চি। আপনি হয়তো লক্ষ্যে করেছন, আমার নির্বাচনী ওয়ার্ড জামালখান পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও সমান শিক্ষায় শিক্ষিত। তাছাড়া আমার ওয়ার্ডে চট্টগ্রামে স্বনামধন্য উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় হল ডাঃ খাস্তগীর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, গত ২ বৎসর যাবৎ শাহ ওয়ালী ইনস্টিটিউটে ও প্রভাতীকালীন বালিকা শাখা চালু করা হয়েছে। আমি দৃঢ়তার সাথে বলতে চাই, যে সমাজে শিক্ষিত নারী আছে সে সমাজের নারীরা ক্ষমাতয়নের বলয়ে আছে। হতে পারে সরকারী বা বেসরকারী। দেশীয় সাংস্কৃতির প্রাসঙ্গিকতায় বলি, আমার ওয়ার্ডে সর্বস্তরের জনসাধারণ দেশীয় সংস্কৃতি চর্চায় নিয়মিত অনুশীলন করতে পারে। ওয়ার্ডের ডি.সি হিলে চট্টলাবাসী পহেলা বৈশাখকে বরণ করেন। বসন্ত কালে বসন্ত উৎসবে মুখরিত হয় থাকে জামালখানের মূল সড়ক। ওয়ার্ডের বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে শীতকালীন পিঠা উৎসবও পরিলক্ষিত হয়। বলতে পারি ষোল আনায় বাঙালি হয়ে আছে আমার নির্বাচনী এলাকা জামালখান ওয়ার্ড।
৭. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনার এলাকায় কিছু ভাসমান ব্যবসায়ী ফুটপাত দখল করে ব্যবসা করছে, ফুটপাত দখলমুক্ত করার কোন উদ্যেগ নিয়েছেন কি ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : আমার নির্বাচনি ওয়ার্ডে কিছু কিছু জায়গায় ফুটপাত দখল করে ভাসমান ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করছে। যা নগর নন্দনের ক্ষেত্রে একটি চ্যালেঞ্জ হিসেবে ধরা হয়। আমিও আপনার সাথে একমত পোষণ করি। তবে এটা বলতে চাই যে, অন্যান্য ওয়ার্ডের তুলনায় আমার ওয়ার্ডে ফুটপাত দখল কিঞ্চিতমাত্র। আমি সম্মানিত মেয়র মহোদয়ের সাথে এই বিষয়টি নিয়ে আলাপ আলোচনা করে একটি সমাধানের পথ বের করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছি। মেয়র মহোদয় আমাকে আশ্বস্ত করেছেন, আমিসহ চট্টলার ৪০ জন ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের সাথে নিয়ে বসে এই সমস্যার সমাধান করবেন। আমি ওয়ার্ডবাসীকে আশ্বস্ত করে জানাতে চাই, ফুটপাত অবশ্যই দখলমুক্ত হবে। ফুটপাত হবে পথচারীর জন্য।
৮.  বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : সম্প্রতি চট্টগ্রামসহ সারা বাংলাদেশে ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব রয়েছে, ডেঙ্গু হতে ওয়ার্ডবাসীকে বাঁচানোর জন্য কি কি পদক্ষেপ নিয়েছেন ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : আপনারা হয়তো জানেন, মশাবাহিত ডেঙ্গু রোগ চট্টগ্রামসহ সারা বাংলাদেশে হঠাৎ করে ছড়িয়ে পড়াতে সরকারী হিসাবে প্রায় ৮৪ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী এই বিষয়ে খুব ত্বরিৎগতিতে বেশকিছু পদক্ষেপ নেয়াতে ডেঙ্গুরোগ মহামারী আকারে রূপ নিতে পারেনি। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ডেঙ্গু নিরাময়ে জোড়ালো ভূমিকা রেখেছে। জামালখান ওয়ার্ডকে ডেঙ্গু মুক্ত রাখতে ওয়ার্ডের সকল নালা-নর্দমায় মশা নিধন ঔষধ ছিটানো হয়েছে। বিভিন্ন অফিস আদালত ও আবাসিক ভবনগুলোতে পানি যেন জমে না থাকে সেজন্য মাইকিং করা হয়েছে। ডেঙ্গু প্রতিরোধে পোস্টার লাগানো ও লিফলেট বিলি করা হয়েছে। বিভিন্ন সেবামূলক প্রতিষ্ঠান বা সংস্থায় ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রন সংবলিত ব্যানার টাঙানো হয়েছে। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটির পর মশা নিধন ঔষধ ছিটানো হয়েছে।
৯. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনার পরিবারে কে কে আছেন ? আপনার আয়ের উৎস কি ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : আমার স্ত্রী ও ২জন সন্তান নিয়ে আমার ছোট সংসার। সন্তানরা স্কুলে লেখাপড়া করে। আয়ের উৎস হলো – আমার গার্মেন্টস শিল্প আছে। এছাড়াও মডার্ণ স্যালুন, রেষ্টুরেন্ট ও জিমের ব্যবসার সাথেও আমি সম্পৃক্ত।
১০. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : পুননির্বাচিত হলে আগামীতে আপনি কেমন জামালখান দেখতে চান ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : সৃষ্টিকর্তার অনুগ্রহে ও ওয়ার্ডবাসীর ভালোবাসায় পুর্ননির্বাচিত হলে উন্নয়নের অগ্রগতি আরো ত্বরান্বিত হবে। জনতার আশা-আকাংখার আগামীতে আরো প্রতিফলন ঘটাবো। একলাইনে বলতে চাই, আগামীতে ‘বিশ্ব দেখবে জামালখান।’
১১. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনার জামালখান ওয়ার্ডবাসীর জন্য কোন বার্তা আছে কি ?
কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন : আমি জামালখান ওয়ার্ডবাসীর সর্বসাধারণকে বলতে চাই, আপনাদের অকৃত্রিম ভালোবাসায় আমাকে কাউন্সিলর হিসেবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনে মনোনীত করেছেন। কর্পোরেশন প্রদত্ত যত উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড হয়েছে আমি সততা ও নিষ্ঠার সাথে তা পালন করে যাচ্ছি। মাননীয় মেয়র মহোদয় আমাকে অত্যন্ত স্নেহভাজন মনে করে বিধায় জামালখান ওয়ার্ডকে আমি একটি মডেল ওয়ার্ড হিসেবে বাংলাদেশে পরিচয় করিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছি। উন্নয়নকে আরো বেগবান ও অর্জিত মডেল ওয়ার্ডকে আরো সুন্দর করতে সকলের দোয়া কামনা করছি।


ট্যাগ :

আরো সংবাদ