বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯ ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Bangladesh Total News

আমি কনিষ্ঠ কাউন্সিলর হলেও বাবার দেখিয়ে দেওয়া উন্নয়নের পথ ধরেই চলব – এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক)

প্রকাশের সময় : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ৮:০৩ : অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদন: ঘণবসতিপূর্ণ বৃহত্তর বাকলিয়ার ১৭নং ওয়ার্ড হচ্ছে, সিটি কর্পোরেশনের এক খন্ড উন্নয়নের রোলমডেল। এই ওয়ার্ডে সাধারণত উচ্চ মধ্যমিত্ত, মধ্যবিত্ত ও নিম্ন আয়ের লোকজন বসবাস করে। জীবন ও বসবাসের বৈচিত্রতা এখানে বেশ পরিলক্ষিত হয়। এই ওয়ার্ডে কর্পোরেশনের সার্বিক সহযোগিতায় দিন দিন সংস্কার ও উন্নয়ন হচ্ছে। পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী ক্রমবর্ধমানহারে নাগরিক সুযোগ-সুবিধার আওতায় আসছে। ইতিবাচক ধারা অব্যাহত থাকার পরেও নতুন নতুন মানবসৃষ্ট কিছু সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে এলাকাবাসী। জলাবদ্ধতা, বায়ু ও পানি দূষণ, মাদকসমস্যা, ওয়াসা কর্তৃক রাস্তাঘাটের পুনঃখননের ফলে জণভোগান্তি, ডাস্টবিনের ময়লা না ফেলা, খালে কঠিন বর্জ্য ফেলা, মশক নিধন কার্যক্রমের গতি বাড়ানোসহ অনেক বিষয় নিয়ে বিটিনিউজ২৪.কম.বিডির সাথে খোলামেলা কথা হয় অত্র এলাকার নব নির্বাচিত সর্বকনিষ্ঠ কাউন্সিলর এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) এর সাথে। নিচে তার সাক্ষাৎকারটি দেয়া হল।
১. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : সম্ভবত আপনি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সর্বকনিষ্ট কাউন্সিলর। কাউন্সিলর হিসেবে আপনার অনুভূতিটি কেমন?
এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) : আলহামদুলিল্লাহ, ছোট বেলা থেকেই বাবা রাজনীতি করতো মানুষের কল্যাণের স্বার্থে। অত্র এলাকার সুচিন্তিত মানুষগুলোর ভাবনার আদলে তাঁর প্রজ্ঞা ও কর্মকৌশলকে সমন্বয় করে নির্ধারিত হত এলাকার উন্নয়ন। সম্মিলিতভাবে এগিয়ে চলার প্রক্রিয়াটি শিখিয়েছিলেন তিনি। পিতার দেখিয়ে দেওয়া পথ অনুসরণ করে পথ চলা শুরু করেছি। মূলত বাবার কাজের সুনামের কারনেই আজ জনগণ আমাকে নির্বাচিত করেছে। আর অনুভূতির কথা বলছেন, এটি জনগণের পক্ষে কাজ করার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্পিত দায়িত্ব। আপনাদের মাধ্যমে আমার ওয়ার্ডের সর্বসাধারণের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, আমি আপনাদেরই লোক। আমার মরহুম বাবার মত এই এলাকার উন্নয়ন ও কল্যাণের জন্য তিনি যে ধাঁচে, যে প্রকারে, যে গতিতে চলেছিলেন, আমিও একই ধারা অব্যাহত রাখতে চাই।
২. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : সম্প্রতি আপনার নির্বাচনী এলাকায় বিভিন্ন রাস্তাঘাট ওয়াসা ও অন্যান্য সংস্থার কারণে ক্ষত বিক্ষত হয়ে আছে। ফলে জনভোগান্তি এখন চরমে। রাস্তা সুশ্রী ও চলাচল উপযোগী করার জন্য আশু কি পদক্ষেপ নিচ্ছেন?
এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) : আপনার প্রশ্নটি বেশ সময়োপযোগী। হয়তো আপনি আসার সময় উল্লেখিত সমস্যাটি উপলব্ধি করেছেন। আমিও সাধরণ নাগরিকের মত উৎকন্ঠায় আছি। ওয়াসা ও অন্যান্য সংস্থাগুলোর সাথে আমি নির্বাচিত হওয়ার পর যোগযোগ করেছি। আমি আপনাদের মাধ্যমে অত্র এলাকার জনসাধারণকে আশ্বস্ত করছি এই চিহ্নিত সমস্যার দ্রুত সমাধান হবে। মেয়র মহোদয় আমার এলাকার ব্যাপারে বেশ সচেতন আছেন এবং সার্বিকভাবে বিভিন্ন সমস্যা ও উন্নয়ন কর্মকান্ড অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চালিয়ে যাচ্ছেন। নিশ্চয়ই অচিরেই জনভোগান্তি নিরসন হবে, রাস্তা চলাচলের উপযোগী হবে।
৩. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনি উপনির্বাচনে নির্বাচিত হওয়ার পর কি কি উন্নয়ন কর্মকান্ড হাতে নিয়েছেন ও কতটুকু এগিয়েছেন ?
এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) : আমি নির্বাচিত হওয়ার পর বিভিন্ন পাড়ার মুরব্বী, মহল্লার সর্দার, সমাজকল্যাণমূলক সংগঠনের পরিচালনা পর্ষদের নেতাদের সাথে বসে আলাপ আলোচনার ভিত্তিতে স্বল্প সময়ে বেশ কয়েকটি রাস্তা সংস্কার ও মজবুতী করণের কাজ হাতে নিয়েছি। যেমন নূর বক্স হাজী বাই লেইন, খুরশীদ মিয়া রোড বাই লেইন, আবদুল লতিফ রোড বাই লেইন, রসূলবাগ আবাসিক এলাকার সি ব্লক, শালবন আবাসিক এলাকা বাই লেইন ও হাফেজ কলোনী রোড ইত্যাদি।
৪. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনার এলাকায় জলাবদ্ধতা, সমস্যা না প্রাকৃতিক দূর্যোগ মনে করেন?
এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের চিহ্নিত বড় সমস্যার মধ্যে জলাবদ্ধতা, জলজট একটি বড় সমস্যা। দেখুন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের একটি ওয়ার্ডের পাশে আরেকটি ওয়ার্ড। আপনি অন্তর দৃষ্টি দিয়ে দেখলে বুঝতে পারবেন, এক ওয়ার্ডের সমস্যা তরঙ্গগতভাবে অন্য ওয়ার্ডেও নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। একইভাবে একটি ওয়ার্ডের সফলতা বা সুকর্ম অন্য ওয়ার্ডকেও আন্দোলিত করে। জলাবদ্ধতার জন্য এককভাবে একটি নির্দ্দিষ্ট জনগোষ্ঠী কিংবা নির্দ্দিষ্ট প্রতিষ্ঠান দায়ী নয়। এই ইস্যুতে সুফল পেতে হলে সকল স্তরের মানুষের অভ্যাস পরিবর্তন করা প্রয়োজন। আমি মনে করি সঠিক কর্ম ও অভ্যাস চর্চার মাধ্যমে এই সমস্যা হ্রাস করা সম্ভব। কঠিন বর্জ্যে ডাস্টবিনে আর তরল বর্জ্যে যদি নালায় ফেলা হয় অনেকাংশে এই চিহ্নিত বিষয়টির সমাধান হতে পারে। আর জলজটতার ক্ষেত্রে পয়ঃনিস্কাসন ব্যবস্থা, ডাস্টবিন নিয়মিত ময়লা পরিস্কার, ও নালার পানি প্রবাহ সঠিকভাবে হচ্ছে কিনা তদারকিতে এই সমস্যা কমে আসতে পারে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে সৃষ্ট জলাবদ্ধতা নগরকে ছিন্নবিন্ন করে ফেলছে। প্রকৃতির এই দানবীয় আচরণের জন্য তো আমরাই দায়ী।

৫. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনার নির্বাচনী এলাকায় ইদানিং দেখা যাচ্ছে তৃতীয় লিঙ্গের লোকজন দোকানপাটসহ সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষকে হেনস্থা করে টাকা আদায় করছে।এই ব্যাপারে কি পদক্ষেপ নিয়েছেন?
এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) : আপনি ভালো প্রশ্ন করেছেন। এটি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন এলাকায় হিজড়াদের প্রাদুর্ভাব দেখা যাচ্ছে, জনসাধারণকে নানাভাবে হেনস্থা করে অর্থ উপার্জনের প্রক্রিয়াটি নিন্দনীয়। এই বিষয়টি আইন প্রয়োগকারী সংস্থার তদারকির প্রয়োজন। এই চিহ্নিত জনগোষ্ঠিদের একটি শৃংখলায় এনে, জীবন-জীবিকার স্বার্থে ও স্বল্প সময়ে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ জনশক্তিতে রূপান্তর করা যায়। অবহেলা নয়, বারবার কাউন্সিলিং এর মাধ্যমে এই চিহ্নিত জনগোষ্ঠিকে মূল শ্রোতধারায় আনা সম্ভব বলে আমি মনে করি।
৬. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : বিগত কয়েক মাস যাবৎ চট্টগ্রামসহ সারা বাংলাদেশে এডিস মশাবাহিত রোগ ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা যাচ্ছে, মশাবাহিত সকল ধরণের রোগ নির্মূলে আপনি কি পদক্ষেপ নিয়েছে?
এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধায়নে মশা নিয়ন্ত্রণ ও মশাবাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণের কর্মসূচী বিরাজমান আছে। কর্পোরেশন এই ব্যাপারে অন্যান্য ওয়ার্ডের মত আমার ওয়ার্ডের প্রতি তীক্ষ্ম দৃষ্টি রেখেছে। আমি নিজেও আমার ওয়ার্ডের বিভিন্ন ব্লকে মশক নিধন কর্মসূচী সরাসরি তদারকি করছি। আর ডেঙ্গু রোগের কারণ ও বাঁচার উপায় সম্পর্কিত বিভিন্ন সচেতনতামূলক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছি। যেমন মাইকিং ,পোস্টার ও লিফলেট জনগণের মধ্যে বিলি করা হচ্ছে। তাছাড়া কর্পোরেশনের স্বাস্থ্যকর্মীর মাধ্যমে আমার ওয়ার্ডে ডেঙ্গু রোগের প্রতিকার সম্পর্কিত তথ্যগুলো সর্বসাধরণের কাছে পৌছে দেওয়া হচ্ছে।
৭. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনার ওয়ার্ডে মাদক ক্রয়-বিক্রয় ও সেবনের চিত্র দেখা যায়। মাদক নির্মূলের ক্ষেত্রে আপনি কি কি চিন্তা করছেন?
এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) : মাদকের বিরুদ্ধে আমার অবস্থান, আমি স্পষ্টভাবে আপনাদের মাধ্যমে আমার ওয়ার্ডের সর্বজনসাধরণকে জানিয়ে দিতে চাই, মাদকমুক্ত করতে বৈধ উপায়ে যা যা করা সম্ভব আমি সবকিছু করবো। উঠান বৈঠক হতে শুরু করে মাদকবিরোধী সভা-সমাবেশ ও র‌্যালি ইত্যাদি আমার পরিকল্পনায় রয়েছে। মেয়র মহোদয় এক্ষেত্রে আমাকে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। বিক্রয়ের স্পটগুলো চিহ্নিত হচ্ছে। বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব নেজাম উদ্দীন সাহেব মাদক বিক্রয় ও উৎখাত যে সাহসী ভূমিকা দেখাচ্ছেন তা প্রশংসার দাবী রাখে। মাদক নির্মূলে আইন শৃংখলা প্রয়োগকারী সংস্থা, সুশীল সমাজ, সমাজের গুণীজন ও সমাজকল্যাণমূলক সংগঠনের নেতৃবর্গের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছি। মাদকের কুফল সম্পর্কিত তথ্যাবলী যুবসমাজের কাছে পৌছাতে চাই। আশা করি এক্ষেত্রে তারা সহযোগিতা করবেন। এলাকার সকল পরিবারের প্রতি সহানুভূতির সাথে অনুরোধ জানাই, আপনার সন্তানদের খোঁজ খবর রাখুন, কার সাথে মিশছে জানার চেষ্টা করুন, সময়মত পড়াশোনা করছে কিনা তদারকি করুন।
৮. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আমরা জানি আপনার এলাকায় সম্প্রতি কিছু কিশোর গ্যাং এর প্রাদুর্ভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে, রাস্তা ও অলিগলির মুখে তাদের উগ্র আচরণে স্কুলকলেজগামী কিশোরী তরুণতরুনী বিব্রতবোধ করে। এই অবস্থার উত্তরণের জন্য কি কি পদক্ষেপ নিয়েছেন?
এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) ; ঢাকাসহ বেশ কয়েকটি নগরে কিশোর গ্যাং সম্পর্কিত কিছু তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। তবে আমার নির্বাচনী এলাকায় কিশোর অপরাধ বা কিশোর গ্যাং তেমন পরিলক্ষিত হয়না। বিচ্ছিন্ন দুএকটি ঘটনায় কিশোরদের সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে জানতে পেরেছি। তবে অনৈতিক আকাশ সংস্কৃতি ও পরিবারের উদাসীন আচরণে তারা অসভ্য জগতের দিকে ধাবিত হচ্ছে। কিশোরী, তরুনী চলাফেরায় বিব্রতবোধের প্রাসঙ্গিকতায় বলি, এই ধরণের বিপথগামী কিশোরদের বিষয়টি নিয়ে কাউন্সিলিং করা প্রয়োজন, আচরণগত অভ্যাস পরিবর্তনের জন্য সমাজকল্যাণমূকক সংগঠনগুলোর ভূমিকা রাখা প্রয়োজন। এভাবেই এই কিশোর কিংবা গ্যাং কালচার সমাপ্তির পথে একধাপ এগিয়ে যাবে।
৯. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনার এলকায় পরিলক্ষিত হয়েছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে শিশুশ্রম আছে। একইসাথে নারী শিক্ষা সম্প্রসারণে সিটি কর্পোরেশনে তত্ত্বাবধায়নে কি কি প্রতিষ্ঠান আছে এবং কোথায় সেগুলো সর্বসাধরণ জানতে চাই?
এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) : একজন দায়িত্বশীল নাগরিক হিসেবে আমি শিশুশ্রম বিরোধী এবং এটাও মনে করি শিশুশ্রম নিন্দনীয় ও দন্ডনীয় অপরাধ। শিশুশ্রম নিরুৎসাহের জন্য কর্পোরেশনের নীতিমালা অনুসরণ মেয়র মহোদয়ের সুপরামর্শক্রমে এটা এখন অনেকাংশে কমে এসেছে। তবে শূন্যের কোঠায় আনা সম্ভব হয়নি। একজন কনিষ্ঠ কাউন্সিলর হিসেবে বিষয়টিকে প্রাধান্য দিয়ে আগামীতে এই ইস্যু নিয়ে কাজ করবো। বিভিন্ন বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থার সাথে প্রাথমিক পর্যায়ে শিশুশ্রম নিরসনের কৌশল নিয়ে আলোচনা করেছি। যদি সময় পাই কর্পোরেশনের সাথে সমন্বিতভাবে শিশুশ্রম নিয়ে কাজ করবো। আর যদি জনগণ আগামী দিনে আমাকে তাদের প্রতিনিধি হিসেবে মনোনীত না করেন তবে ব্যক্তিগত উদ্যেগে এই ইস্যুতে কাজ করার চেষ্টা করবো।
নারী শিক্ষা সম্প্রাসারণে আমার মরহুম পিতা এ.কে.এম জাফরুল ইসলামের মত আমি ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করি। অর্ধেক জনগোষ্ঠীকে শিক্ষাহীন রেখে কোন অবস্থাতেই একটি জাতি লক্ষ্যে পৌছাতে পারে না। হয়তো আপনারা জানেন, আমার ওয়ার্ডে মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, উচ্চ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় ও মহিলা মাদ্রাসা রয়েছে। তাছাড়া চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক পরিচালিত কম্বাইন্ড হাইস্কুলসহ বিভিন্ন ভালমানের কেজি স্কুল রয়েছে। যা নারী শিক্ষা সম্প্রাসারণের ক্ষেত্রে সহায়ক।
১০. বিটিনিউজ২৪.কম.বিডি : আপনার ওয়ার্ড ও নগরবাসীর জন্য কোন বার্তা আছে কি?
এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম (ডিউক) : জ্বী, আমি আপনাদের মাধ্যমে আমার ওয়ার্ডের সর্বসাধারণকে জানাতে চাই, আমার মরহুম পিতা এ.কে.এম জাফরুল ইসলামের কর্পোরেশন কর্তৃক প্রদত্ত উন্নয়ন কর্মকান্ডগুলো সুসমাপ্ত করতে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। দায়িত্ব নিয়ে বলছি, সময় ও কাজের সুযোগ দিলে একটি নান্দনিক ওয়ার্ড উপহার দেব চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনকে। সিসি ক্যামেরার ও নিরাপত্তা কর্মীর সংখ্যা বাড়িয়ে ওয়ার্ডকে সুরক্ষিত রাখব। আর নগরবাসীর জন্য বলতে চাই দলমত, ধর্ম-বর্ণ, নির্বিশেষে সিটি কর্পোরেশনকে সহযোগিতা করুন। কর্পোরেশনের নীতিমালা অনুসরণ করে হোল্ডিং ট্যাক্স ও ভ্যাট প্রদান করুন। বিটিনিউজ২৪.কম.বিডির সমৃদ্ধ আগামী কামনা করছি আর সর্বস্তরের জনতা থাকুক বিটিনিউজ২৪.কম.বিডির সাথে। ধন্যবাদ।


ট্যাগ :

আরো সংবাদ