মঙ্গলবার, ২ মার্চ ২০২১ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangladesh Total News

সহিংসতায় দুই লাশ ৮ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ভোট গ্রহন স্থগিত

প্রকাশের সময় : ১৬ জানুয়ারি, ২০২১ ৫:৫২ : পূর্বাহ্ণ

এম এ কবীর, ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌরসভায় নির্বাচনী সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে। ৫ ঘন্টার ব্যবধানে এক কাউন্সিলর প্রার্থীর লাশ উদ্ধার ও অপর প্রতিদ্বন্দ্বি কাউন্সিলর প্রার্থীর ভাই নিহত হওয়ায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। পাল্টাপাল্টি ঘটনা সংঘটিত হওয়ায় ভোটারদের মধ্যে উদ্বেগ ও উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে। এ কারণে নির্বাচন কমিশন ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদের ভোট গ্রহন স্থগিত করেছে। শনিবার (১৬ জানুয়ারি) শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পুলিশ ও এলাকাবাসি সুত্রে জানা গেছে, ভোটের দুই দিন আগে বুধবার রাতে প্রার্থীসহ দুই জন নিহত হন। রাত ৯টার দিকে শৈলকুপার কবিরপুর এলাকায় ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত হোসেনের ভাই আওয়ামীলীগের উমেদপুর ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ডিস ব্যবসায়ী লিয়াকত হোসেন বল্টু (৪৮) ছুরিকাঘাতে নিহত হন। তিনি শৈলকুপা উপজেলার ষষ্টিবার গ্রামের মৃত মসলেম উদ্দীনের ছেলে। বল্টু পৌর এলাকার কবিরপুর এলাকায় প্রচারনা চালাতে গিয়ে ছুরিকাঘাতের শিকার হন। প্রতিদ্বন্দ্বি পাঞ্জাবী প্রতিকের কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর হোসেন বাবুর সমর্থক বাপ্পির নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী বল্টু ও তার ভাই শওকতকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় বল্টুকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত সাড়ে ৯টার দিকে মারা যান। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে শৈলকুপা পৌর এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনার দিন রাতেই নিহত বল্টুর উপর হামলাকারী কবিরপুর গ্রামের সামছুদ্দিনের ছেলে বাপ্পি (৩০) অজ্ঞাত ব্যক্তির হাতে আহত হয়ে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে আসে। এদিকে সহিংসতা ও ভাংচুর এড়াতে গোটা শহরে পুলিশ মোতায়েন করা হয়। রাত যত গভীর হতে থাকে ততই আতংক ও নীরবতা নেমে আসে। বল্টু নিহত হওয়ার ৪ ঘন্টা পর খবর আসে একই ওয়ার্ডের স্বতন্ত্র কমিশনার প্রার্থী আলমগীর হোসেন বাবুর লাশ কুমার নদে আছে। আশ্চর্য্য জনক হলেও সত্য নদীর ভেতরে দাঁড়ানো অবস্থায় ছিল তার মৃতদেহটি। কিভাবে মৃত্যু হয়েছে এই কমিশনার প্রার্থীর তা নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ। বল্টু নিহত হওয়ার পেছনে বাবুর সমর্থকদের দায়ী করা হচ্ছিল। বিষয়টি প্রমানিত হয় হামলাকারী বাপ্পি আহত হয়ে হাসপাতালে আসার পর। কারণ বাপ্পি ছিল বাবুর সমর্থক। ফলে নদীতে বাবুর লাশ পাওয়া ও বাপ্পির উপর হামলা একই সুত্রে গাথা বলে অভিযোগ করেন বাবুর স্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা ইতি। তিনি বলেন, এটা পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। বল্টু নিহত হবার পর বাবু তার স্ত্রীকে ফোন করে জানায় ‘আমি নিরাপদে যাচ্ছি’ কেউ দরজা খুলতে বললে যেন না খোলে। এর কিছুক্ষণ পরই বাবুর লাশ পাওয়া যায় বারইপাড়া এলাকার কুমার নদে। প্রাথমিকভাবে পুলিশ এটিকে পানিতে ডুবিয়ে হত্যার ঘটনা ধরে এর পেছনের কারণ অনুসন্ধানে মাঠে নেমেছে। এক দিনে আওয়াামী সমর্থক দুই ব্যক্তির হত্যাকান্ডের ঘটনা পৌর নির্বাচনকে আরো সঙ্ঘাতময় ও উত্তপ্ত করে তুলতে পারে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।  শৈলকুপা থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম জানান, দুটি হত্যার ঘটনায় এখনো কেউ মামলা করেনি। তাই গ্রেফতারও নেই। আইনশৃংখলা পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।


ট্যাগ :

আরো সংবাদ