রোববার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangladesh Total News

শিরোনাম :

বিশ কে বিষময় করে ২১৯, দেশে ছড়িয়েছে কোভিড-১৯: এম এ কবীর

প্রকাশের সময় : ৩০ ডিসেম্বর, ২০২০ ৬:৩৫ : পূর্বাহ্ণ

স্বাগত ২০২১। মহাকালের খাতায় স্মরণীয় হয়ে থাকল ২০২০। উনিশের শেষ দিনে উহানে শনাক্ত হয়ে পুরো বিশ সালকে বিষময় করে দিয়েছে কোভিড-১৯। । কে, কখন, কোথায় .কীভাবে,কার মাধ্যমে আক্রান্ত হচ্ছেন,কবে রোধ হবে সংক্রমণ তা কেউ নিশ্চিত নন। সব কিছু একেবারে এলোমেলো করে দিয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে এই শত্রু। ২১৯ দেশে ছড়িয়েছে কোভিড-১৯। এর উৎপত্তি, মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া, মৃত্যুর মিছিল, ভ্যাকসিনের প্রত্যাশা বছরজুড়ে ছিল আলোচিত। বিশে বিষময় এমন একটি বছরে আমাদের ছিল হতাশা, বেদনা, প্রাপ্তি আর প্রত্যাশা পূরণের অনেক স্বপ্ন সাধ। ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর। বিশ্ব নতুন এক দশকের অশায় স্বপ্ন আঁকে। যে রকমটা আশা করা হয়, সেভাবে কিছুই ঘটেনি। মহামারি তছনছ করে দেয় সব আশা,সব কল্পনা। বছরের শুরুতেই চীনে ছড়িয়ে পড়ে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস। এখন পর্যন্ত এ সম্পর্কে জানা গেছে খুব কমই। যথাযথ সুরক্ষা সামগ্রীর অভাবে মানুষ বিকল্প হিসেবে বেছে নেয় নিত্যব্যবহার্য সামগ্রী। বিশ্বজুড়ে দেয়া হয় লকডাউন । চিকিৎসা আর মাস্ক সংকট ছিল সারা দুনিয়ায়।
নিষেধাজ্ঞার কারণে দীর্ঘ সময় কাটে অনলাইনে। অফিস-আদালত, যোগাযোগ, ব্যবসা-বাণিজ্য, শপিং, স্কুল,কলেজ, বিশ্ব বিদ্যালয়ের ক্লাসও চলে ভার্চ্যুায়ালী। সামাজিক দূরত্বের জন্য নেয়া হয় নানা পদক্ষেপ। জীবীকা নির্বাহে বহু সৃষ্টিশীল পথ খুঁঁজে নিতে হয় মানুষকে।
ভাইরাসের প্রকোপে ‘বিশ^গ্রাম’ ধারণা মুখ থুবড়ে পড়ে। সেই ধারণাকে একেবারে অচল মনে হচ্ছিল। যেভাবে সীমান্ত বন্ধের হিড়িক পড়ে তাতে এমনটা ভাবা ছাড়া উপায়ও ছিল না। প্রথম দফা লকডাউনের পর বার্সেলোনার গ্রান্ড থিয়েটার বেশ সাড়ম্বরে খোলা হয়। সেখানে নার্সারি থেকে আনা দুই হাজারের বেশি চারাগাছের সামনে প্রথম অনুষ্ঠান করা হয়। কঠিন দুঃসময়েও শিল্পের গুরুত্ব যে কত বেশি, তা ফুটিয়ে তোলাই ছিল এর লক্ষ্য।এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে মারাত্মক দাবানলে ক্ষতিগ্রস্ত হয় ব্রাজিলের আমাজন বনাঞ্চল।
আফ্রিকান-আমেরিকান নাগরিক জর্জ ফ্লয়েডকে গ্রেফতারের পর যেভাবে মেরে ফেলে সে ঘটনা বিশ^ জুড়ে বর্ণবাদ এবং পুলিশি নিষ্ঠুরতার বিরুদ্ধে ব্যাপক আন্দোলনের সূচনা করে।বৈশি^ক মহামারির মধ্যেও থেমে থাকেনি যুক্তরাষ্ট্রের দুষ্টুনীতি। ইরানকে কাবু করতে নানা চেষ্টা অব্যাহত রাখে বরাবরই। বহু অপেক্ষার পর সুযোগও আসে হাতে। হত্যা করা হয় ইরানের কুদস ফোর্সের কমান্ডার কাসেম সোলাইমানিকে। বছরের শেষদিকে এসে হত্যা করা হয় ইরানি পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসেন ফখরিযাদেকে।

ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ড (আইআরজিসি)-এর কমান্ডার ছিলেন জেনারেল কাসেম সোলাইমানি। আর রেভল্যুশনারি গার্ডের ‘কুদস্ ফোর্স’-এর কমান্ডারও ছিলেন তিনি। ছিলেন ইসরায়েলের মোসাদ এবং যুক্তরাষ্ট্রের সিআই এর হিটলিস্টে। এরমধ্যেও নির্বিঘেœ তিনি ইরানের স্বার্থ রক্ষা করে গেছেন বহুদিন। কিন্তু তর যেন সইছিলনা ডোনাল্ড ট্রাম্পের। তারই নির্দেশে ইরাকের মাটিতে হামলা চালিয়ে কাসেম সোলাইমানিকে হত্যা করা হয়।হামলায় ইরাকের এক জনপ্রিয় নেতাসহ বেশ কয়েকজন নিহত হন। এর প্রতিশোধ নিতে ইরান ইরাকে থাকা যুক্তরাষ্ট্রের ঘাঁটিতে হামলা চালায়। বিরাজ করে যুদ্ধাবস্থা। ইরান পরমাণু অস্ত্র তৈরি করতে পারে এমন আশঙ্কা থেকেই ইউরোপ-আমেরিকা-ইসরায়েল তটস্থ। মূলত, ইসরায়েলের ‘নিরাপত্তার’ জন্যেই আমেরিকা এবং ইউরোপ একজোট হয়ে ইরানের বিরুদ্ধে এক কাতারে। ২০১৫ সালে বারাক ওবামা প্রেসিডেন্ট থাকাকালে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, ফ্রান্স, রাশিয়া ও চীনের সঙ্গে পরমাণু চুক্তি হয় ইরানের। ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর এ চুক্তি থেকে নিজেদের সরিয়ে নেয়। জটিলতা বাড়তে থাকে। ইরানের পরামাণু কর্মসূচিকে থামিয়ে দিতেই মূলত দেশটির গবেষণা ও উদ্ভাবনী সংস্থা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রধান মোহসেন ফখরিযাদেকে হত্যা করা হয়।ইরানের সঙ্গে হিজবুল্লাহর ঘনিষ্ঠতা, দুর্নীতি নিয়ে সরকারের টালমাটাল অবস্থা এবং ইসরায়েলের সঙ্গে বিরোধপূর্ণ সম্পর্কের কারণে লেবানন ছিল আলোচনার কেন্দ্রে। ৪ আগষ্ট দেশটির রাজধানী বৈরুত বন্দরে এক ভয়ানক বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মৃত্যু হয় প্রায় দু‘শ মানুষের। লেবাননের প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন বলেছেন, গুদামে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রাখা দশ হাজার সাত’‘শ পঞ্চাশ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের কারণে বিস্ফোরণ হয়েছে।নাগরনো-কারাবাখকে কেন্দ্র করে ২৭ সেপ্টেম্বর যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান। যুদ্ধ স্থায়ী হয় ছয় সপ্তাহ। তুরস্ক আজারিদের সরাসরি সমর্থন দিয়ে গেছে। পরে রাশিয়ার মধ্যস্থতায় আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়।

১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভাঙার পর থেকেই আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এর শুরুটা হয় আর্মেনিয়া দ্বারা আজারবাইজানের ভূখ- নাগরনো-কারাবাখ দখলের মধ্য দিয়ে। ১৯৯৪ সালে আন্তর্জাতিকভাবে আজারবাইজানের অংশ হিসেবে স্বীকৃত নাগরনো-কারাবাখ ও আরও সাত অঞ্চল আর্মেনিয়া দখল করে নিলে উত্তেজনা নতুন দিকে মোড় নেয়।সেই সংঘাত এবং উত্তেজনার সমাপ্তি টানলো সাম্প্রতিক ছয় সপ্তাহের যুদ্ধে। এতে আজারবাইজানের প্রায় ২ হাজার ৮শ’র বেশি এবং আর্মেনিয়ার ৩ হাজার সেনার প্রাণ গেছে।যুক্তরাষ্ট্রের মসনদে ফের বসার স্বপ্ন নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নির্বাচনে জো বাইডেন পেয়েছেন ৩০৮ আর ট্রাম্প পেয়েছেন ২৩২ ইলেক্টোরাল ভোট। ২০২১ সালের ২০ জানুয়ারি জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবেন।সীমান্তে ভারত-চীনের মধ্যে লড়াই, নাগরনো-কারাবাখে আজারবাইজান-আর্মেনিয়ার যুদ্ধ, লেবাননে বিস্ফোরণ, ইসরায়েলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাত-বাহরাইন-সুদান-মরক্কোর সম্পর্ক স্বাভাবিক করার জন্য চুক্তি, যুক্তরাষ্ট্র-তালেবান চুক্তি এবং তুরস্ক-গ্রিসের মধ্যে উত্তেজনার মধ্যে নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের পরাজয় আলোচনায় ছিল বছরজুড়ে।
১৫ জুন পরিস্থিতি আগের মতো থাকেনি। ১৯৭৫ সালের পর ফের চীন ও ভারতের মধ্যে গালওয়ান উপত্যকায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ভারতের এক কর্নেল পদমর্যাদার কর্মকর্তাসহ সেনাবাহিনীর মোট ২০ সদস্য নিহত হন। ভারতের দাবি, চীনের ৪৫ জনের মতো সেনা ওই সংঘর্ষে প্রাণ হারায়। ১৯৬২ সালেও সীমান্ত বিরোধ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে সংক্ষিপ্ত যুদ্ধ হয়।

ফিলিস্তিনিদের ভূমি দখল করে ১৯৪৮ সালে ইসরায়েল রাষ্ট্রের সূচনা। ফিলিস্তিনিদের অধিকারের প্রতি সমর্থন জানিয়ে মুসলিম অধ্যুষিত মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশে^র বহু দেশ ইসরায়েলের সঙ্গে বৈরী সম্পর্ক জিইয়ে রাখে। এরমধ্যে চাপে পড়ে হোক বা নানা অবৈধ সুবিধার লোভে সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন, সুদান এবং মরক্কো ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে ‘বাধ্য’ হয়। যার জন্য সরাসরি কাজ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার মেয়ে জামাই জেরাড কুশনার।
দেড় যুগ কম সময় নয়। এ সময়ের মধ্যে বিশে^ কতকিছুর বদল ঘটেছে তার ইয়াত্তা নেই। বদল ঘটছিলনা শুধু একটি বিষয়ের। সেটা হলো আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রাসনের অবসান। ২০০১ সালে টুইন টাওয়ারে আত্মঘাতী হামলার পর আফগানিস্তানে সেনা মোতায়েন করে যুক্তরাষ্ট্র। এরপর থেকে আফগানিস্তানে প্রাণ গেছে অগুণতি মানুষের।
১৯ বছর পর ২০২০ সালে এসে যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানের মধ্যে শান্তিচুক্তি হয়। চুক্তি অনুযায়ী, ১৪ মাসের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সেনাদের সরিয়ে নেবে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোট।দুই মাসেরও বেশি সময় ধরে ভয়াবহ দাবানলে পুড়েছে অস্ট্রেলিয়া। এতে নিহত হয়েছেন ১৮ জন। বন্যপ্রাণীর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। মারা যায় ছোট-বড় প্রায় ৫০ কোটি প্রাণী। ভারতে গোমূত্র দিয়ে তৈরি হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও গোবরের তৈরি সাবান কেনার হিড়িক পড়ে মার্চে। দোকানের পাশাপাশি বিভিন্ন ই-কমার্স প্লাটফর্মেও দেদারছে বিক্রি হয়েছে এই স্যানিটাইজার আর সাবান। নেদারল্যান্ডসের লকডাউন পরিস্থিতিতে দেশটির লরেন নগরের সিংগার লরেন জাদুঘর থেকে বিখ্যাত চিত্রকর ভিনসেন্ট ভ্যান গগের একটি চিত্রকর্ম চুরি হয়ে যায়।স্থানীয় সময় রাত সোয়া ৩টার দিকে জাদুঘরের সামনের কাচের দেয়াল ভেঙে ভ্যান গগের ‘স্প্রিং গার্ডেন’ নামের চিত্রকর্মটি চুরি করে। বিশ^জুড়ে তেলের চাহিদা বিপুল পরিমাণে কমে যাওয়ায় ও তেলের যোগান না কমায় তেলের দাম দ্রুত কমেযায়। গত ২২ এপ্রিল তেলের দাম দাঁড়ায় প্রতি ব্যারেল ১৬ ডলারে, যা ১৯৯৯ সালের পর সর্বনি¤œ।বিশে^র দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ চীনে সৃষ্টি হওয়া অর্থনৈতিক সংকটে বেকারত্ব বেড়ে গত ৪০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ।
কেনিয়ায় যখন পঙ্গপাল এসে এক নারীর ক্ষেতের ফসল ধ্বংস করছে, তখন তা অসহায় ভাবে দেখছেন তিনি। ইরান, পাকিস্তান এবং ভারতের বিস্তীর্ণ অঞ্চলের ফসল ধ্বংস করার পর এই পঙ্গপাল পূর্ব আফ্রিকার দিকে অগ্রসর হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওগুলোতে দেখা গেছে, মাইলের পর মাইল জুড়ে উড়ে আসছে পঙ্গপালের দল। মেঘের মতো ঢেকে ফেলছে পুরো এলাকা।
পঙ্গপালের মতোই আফ্রিকার উপকূল থেকে সাহারা মরুভূমি ফেরত ধুলো বাতাস বয়ে এসে বিপত্তি বাধায়। নাসার একটি উপগ্রহ চিত্রে দেখা গেছে, দীর্ঘ দুই হাজার মাইল লম্বা ভয়ঙ্কর এক ধুলোর ঝড়। পরে উত্তর আটলান্টিক মহাসাগরের উপরে ধুলোঝড়টি অবস্থান করে ও শেষ হয়।আফ্রিকার দেশ বতসোয়ানায় দুই মাসে রহস্যজনক কারণে শত শত হাতির মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক দাতব্য সংস্থা ‘ন্যাশনাল পার্ক রেস্কিউ’র ড. নায়াল ম্যাকান জানান, মে মাসের শুরু থেকে জুলাই পর্যন্ত তার সহকর্মীরা বতসোয়ানার উত্তরাঞ্চলের ওকাভাঙ্গা বদ্বীপে ৩৫০টিরও বেশি হাতির মরদেহ দেখেছেন। এ মহাদেশের ৩ ভাগের এক ভাগ হাতির আবাসস্থল বতসোয়ানায়।ফ্রান্সের পশ্চিমাঞ্চলীয় নান্ত শহরে পঞ্চদশ শতকের ঐতিহাসিক স্থাপনা সেইন্ট পিটার ও সেইন্ট পল গির্জায় ভয়াবহ অগ্নিকা-ের ঘটনা ঘটে। ১৮ জুলাই সকাল ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মধ্যযুগের গথিক স্থাপনা, অনন্য শৈলীর এ গির্জাটিতে এর আগে ১৯৭২ সালে আরও একবার অগ্নিকা-ের ঘটনা ঘটে। সে সময় এর ছাদ পুড়ে যায়, যা একইভাবে নতুন করে মেরামত করতে ১৩ বছর সময় লাগে।মহামারির বিস্তার রোধে এ বছর হাজির সংখ্যা সীমিত রাখতে অনুমতি ছাড়া সৌদি আরবের মিনা, মুজদালিফাহ ও আরাফাত ময়দানসহ পবিত্র স্থানগুলোতে প্রবেশ নিষিদ্ধ করে সৌদি কর্তৃপক্ষ। ১৯ জুলাই থেকে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হয়। এবার হজে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা সর্বোচ্চ ১০ হাজার নির্ধারণ করে দেয় সৌদি কর্তৃপক্ষ, যা ইতিহাসে প্রথম।মড়কের বছর সবার দৃষ্টি কাড়ে চীনে সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিমদের ওপর নিপীড়ন-নির্যাতন,নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণমূলক আচরণের বিষয়টি। ‘ফেস রিকগনেশন’ অ্যাপ ব্যবহার করে ওই অঞ্চলের সংখ্যালঘুদের নজরদারিতে রেখেছে চীন। ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলার কাছাকাছি একটি উপকূলে ভয়াবহ আঘাত হানে টাইফুন ভ্যামকো। এতে ৬৭ জনের প্রাণহানি ঘটে। বাংলাদেশেও এ সময় ঘুর্ণিঝড় আম্পানের আঘাতে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে নাজিরবিহীন আন্দোলনে নামেন ভারতের কৃষকরা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছে নিজেদের রক্ত দিয়ে চিঠি লিখে পাঠায় আন্দোলনরত কৃষকরা।নাইজেরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে কৃষকদের বিরুদ্ধে ‘নারকীয়’ গণহত্যায় অন্তত ১১০ জনের মৃত্যু হয়। জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী, প্রথমে ৪৩ জনের মৃত্যু হলেও, পরে সংখ্যা বেড়ে হয় ৭০ জন। ২৮ নভেম্বর দুপুরের দিকে জেরে বোরনো অঙ্গরাজ্যের মাইদুগুরি এলাকার কাছে কোশবে গ্রামের স্থানীয়দের ওপর এ হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়। মোটরসাইকেলে করে সশস্ত্র একদল লোক ক্ষেতে কর্মরত স্থানীয় নারী ও পুরুষদের ওপর হামলা করে। বর্বর এ হামলায় অন্তত ১১০ জন নিহত এবং আরও অনেকে আহত হন।মহাকাশ নিয়ে প্রতিযোগিতা থেমে নেই। চীন হচ্ছে দ্বিতীয় কোন দেশ, যারা চাঁদের মাটিতে তাদের পতাকা ওড়াতে পেরেছে। একই সঙ্গে গত ৪৪ বছরের মধ্যে এই প্রথম চাঁদের মাটি পৃথিবীতে সফলভাবে বহন করে আনে তাদের চ্যাঙই-৫ নভোযান। এ তালিকায় এত দিন ছিল কেবল যুক্তরাষ্ট্র ও সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের নাম।বিশে^র মানুষকে সম্মোহিত করে রেখেছিল সুপারমুন। জ্যোর্তিবিদ্যায় এটি ছিল বছরের অন্যতম উল্লেখযোগ্য ঘটনা।
২০২০ সাল একই সঙ্গে ছিল এক অসম্ভব সুন্দর, অনেক রস, রঙ আর অদম্য মানবতার বছর।

এম এ কবীর
সাংবাদিক,কলামিস্ট,
গবেষক,সমাজচিন্তক।


ট্যাগ :

আরো সংবাদ