বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১ ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangladesh Total News

বিরামপুরে প্রতিপক্ষের কুড়ালের আঘাতে যুবক গুরুতর আহত

প্রকাশের সময় : ২২ ডিসেম্বর, ২০২০ ৪:৩৭ : অপরাহ্ণ

রেজওয়ান আলী, বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:দিনাজপুর বিরামপুরে জমি থেকে মাটি উত্তোলন কে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের কুড়ালের আঘাঁতে এক যুবক গুরুতর আহত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রয়েছেন। জানা যায়, যায়,উপজেলার জোতবানি ইউনিয়নের চতুরপুর মহল্লার আব্দুল কাফীর ছেলে সোলায়মান।যুবক গুরুতর আহত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মাথায় ব্যান্ডেজে মোড়ানো অবস্থায় মৃত্যু যন্ত্রণায় ছটফট করছেন। ২১শে ডিসেম্বর প্রতিপক্ষের জমি থেকে মাটি উত্তোলনের সময় জমির মালিক বাঁধা প্রদান করেন,এক পর্যায় তাদের মধ্যে তর্কবিতর্কের মাঝে জমির মালিক বাঁধা প্রদান করলে এমন ঘটনা ঘটে। প্রতিপক্ষের কুড়াল,লাঠিসোঁটা ও কোঁদালের কোপে সোলায়মান আলী যুবকের এই অবস্থা হয়।সরজমিনে জানা যায়,হাসপাতালে গুরুতর আহত সোলায়মান আলীকে দেখতে গিয়ে প্রতিবেদককে তার বৃদ্ধ পিতা আব্দুল কাফী কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন,সকালে প্রতিবেশি মাদক ব্যবসায়ী ফিরোজ পূর্বপরিকল্পিত ভাবে তার ভাই হবিবর,কুদ্দুস,এনামুল,মোজাম্মেল ও তার ছেলে সোহেল,বিশা,হামিদুল ও একই গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে সাইদুল এবং পাশ্ববর্তী কসবা সাগরপুর গ্রামের বাচ্চু মিয়াসহ ভাড়াটিয়া বেশ কয়েকজন যুবককে সাথে নিয়ে আমার বাড়ির পার্শ্বে মাদ্রাসা সংলগ্ন পুকুর পাড়ের ধারে আমার নিজ আবাদি জমি থেকে মাটি উত্তোলন করে প্রতিপক্ষরা নিয়ে যেতে থাকে।এসময় আমার ছোট ছেলে সোলায়মান বিষয়টি দেখে তাদের বাঁধা প্রদান করে। কিন্তু বাঁধা উপেক্ষা করে প্রতিপক্ষগন আমার ছেলে সোলায়মানকে হত্যার উদ্দেশ্যে কুড়াল,লাঠি ও কোদাল দিয়ে মাথায় এবং কপালে আঘাত করে গুরুতর রক্তাক্ত অবস্থায় মৃত্যু ভেবে পালিয়ে যায়। সংবাদ পেয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় আমার ছেলে সোলায়মানকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মাথায় ও কপালে সেলাই দিয়ে প্রার্থমিক চিকিৎসা শেষে নিবিড় পর্যবেক্ষনের জন্য হাসপাতালের তৃতীয় তলার পুরুষ ওয়ার্ডের ১২ নাম্বার বেডে ভর্তি করেন।কেন সোলায়মানকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে এবিষয়ে তার বড় ভাই তরিকুল ইসলামের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন,প্রতিবেশী ফিরোজ ও তার ছেলেদের মাদক ব্যবসা ও সেবনে আমার বাবা প্রতিবাদ করার কারনেই তারা পূর্বপরিকল্পিত ভাবে এঘটনা ঘটিয়েছে।
বিরামপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন,আহত যুবকের পরিবারের কোন সদস্য থানায় এজাহার দায়ের করলে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় এজাহার দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।

 


ট্যাগ :

আরো সংবাদ