রোববার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১ ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangladesh Total News

ফাইনালে চট্টগ্রামকে পেলো খুলনা

প্রকাশের সময় : ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০ ৩:১৫ : অপরাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট: প্রথম পর্বে পয়েন্ট তালিকায় শীর্ষে থেকে যে দু’টি দল প্রথম কোয়ালিফাইয়ারে খেলেছে,সেই দল দু’টিই বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপের ফাইনালে উঠেছে। সোমবার গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামকে ৪৭ রানে হারিয়ে দিয়ে ফাইনালের টিকিট পাওয়া জেমকন খুলনা ফাইনালে পেলো সেই চট্টগ্রামকে।মঙ্গলবার বেক্সিমকো ঢাকাকে ১১৬ রানে গুড়িয়ে দিয়ে ৫ বল হাতে রেখে ৭ উইকেটে জয়ে ফাইনালে উঠেছে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম।দুই পেস বোলার মোস্তাফিজ-শরীফুলে প্রথম পর্বে হাওয়ায় উড়েছে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম। প্রথম কোয়ালিফাইয়ারে এই পেস জুটি ছিল নিষ্প্রভ। দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারে ছন্দে ফিরেছে এই পেস জুটি। শরীফুলের ২ উইকেটের (২/১৭) পাশে মোস্তাফিজুরের ৩ উইকেট (৩/৩২)। তাতেই লন্ডভন্ড বেক্সিমকো ঢাকা। ১১৮ রানে ফেলেছে তারা ইনিংস গুটিয়ে।১৯তম ওভারের প্রথম বলে মোস্তাফিজকে ছক্কা মেরে আল আমিন প্রকারান্তরে ভীমরুলের চাকে মেরেছেন ঢিল। পরের বলে শাফল করে খেলতে যেয়ে অফ স্ট্যাম্প উড়ে গেছে তার (১৮ বলে ২৫)। পরের ডেলিভারিতে নাসুমের মিডল স্ট্যাম্প গেছে ভেঙ্গে (০) !

এলিমিটেরি ম্যাচে মেজাজ বিগড়ে নাসুমকে ঘুষি মারতে যেয়ে যে অপরাধ করেছেন বেক্সিমকো অধিনায়ক মুশফিক। সেই অপরাধবোধের অভিব্যক্তি ফুটে উঠেছে মঙ্গলবার ম্যাচে তার চেহারায়।বঙ্গবন্ধু টোয়েন্টি-২০ কাপে টস জিতে ফিল্ডিং নেয়া যেখানে রেওয়াজে পরিনত হয়েছে, সেখানে তিনি টস জিতে নিয়েছেন ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত ! ব্যাটিং অর্ডারে পরিবর্তন এনে এদিন লোয়ার অর্ডার থেকে মোক্তার আলীকে ওপেনিংয়ে পাঠিয়েও ঢাকার টিম ম্যানেজমেন্ট কৌশলগত ভুল করেছে। সাব্বির (১১ বলে ১১) মোক্তার (৭ বলে ৭)কে হারানোর পর তৃতীয় উইকেট জুটিতে নাইম-মুশফিকের ৩১ রান চ্যালেঞ্জিং স্কোরের আভাস দিলেও ইনিংসের মাঝপথে ২টি দর্শনীয় ক্যাচ-এ রানের চাকা শ্লথ হয়েছে ঢাকার। মোসাদ্দেককে পুল শটে প্রলুদ্ধ হয়ে ভুল করেছেন মুশফিক। ডিপ মিড উইকেটে রাকিবুলের দারুন এক ক্যাচে ফিরেছেন তিনি (৩১ বলে ২৫)। তাতেই স্তম্ভিত ঢাকা। শ্লগের ৩০ বলে ভুগেছে ঢাকা। ৩২ রান উঠতে হারিয়েছে তারা শেষ ৬ উইকেট !চট্টগ্রামের বিপক্ষে প্রথম ২ দেখায় লড়াইয়ের ফল ছিল ১-১। প্রথম দেখায় মাত্র ৮৮ রানে অল আউট হয়ে ৯ উইকেটে হারের অতীত আছে ঢাকার। দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারেও একই পরিনতির শঙ্কা করেছে ভর।প্রথম ইনিংসে ফ্লাড লাইটে আলোর স্বল্পতায় ৯মিনিট ছিল খেলা স্থগিত।১১৭ রানের চ্যালেঞ্জ পাড়ি দিতে এসে ব্যাটিং পাওয়ার প্লেতে উইকেটহীন ৪২ রানেও ম্যাচটি সহজে জিততে পারেনি গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম। ইনিংসের মাঝপথে অতিরিক্ত সতর্ক ব্যাটিংয়ে মনোনিবেশ করায় এক পর্যায়ে ১২ বলে ১৩ রানের টার্গেটের সামনে দাঁড়িয়েছিল চট্টগ্রাম। লিটন স্বভাববিরোধী ব্যাটিং করেছেন এদিন (৪৯ বলে ৪ চার এ ৪০। তবে মিঠুনের সঙ্গে তার ৫৭ রানের জুটিই চট্টগ্রামকে রেখেছে জয়ের কক্ষপথে। ১৯তম ওভারে ঢাকার পেসার মোক্তার আলীকে এক্সট্রা কভার দিয়ে বাউন্ডারিতে আগাম বিজয়বার্তা দিয়ে চট্টগ্রাম পরের বলে বাউন্ডারি রোপের ঠিক সামনে সাব্বিরের ক্যাচে ফিরে মিঠুন ফিরে যাওয়ায় (৩৫ বলে ৩৪) চাপের মুখে পড়ে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম। তবে পরের বলে সামছুর রহমান শুভ মিড উইকেটের উপর দিয়ে ছক্কায় চট্টগ্রামের ডাগ আউটকে দেন বিজয়বার্তা। শেষ ৬ বলে ১ রানের টার্গেট প্রথম বলেই পাড়ি দিয়েছেন মোসাদ্দেক। আল আমিনকে ফ্লিক শটে সিঙ্গল নিয়ে ফাইনালে ওঠার আনন্দে মেতে উঠেছে চট্টগ্রাম।

 


ট্যাগ :

আরো সংবাদ